কারফিউয়ের মধ্যেও জুমার নামাজের পর কাশ্মিরে বিক্ষোভ

কারফিউয়ের মধ্যেও জুমার নামাজের পর কাশ্মিরে বিক্ষোভ

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে শুক্রবার জুমার নামাজের পরে প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়েছিল সেখানকার অবরুদ্ধ বাসিন্দারা। গেল বৃহস্পতিবার এ প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দেওয়া হয়। মূলত রাজধানী শ্রীনগরের জাতিসংঘ দফতর অভিমুখে মিছিল করার ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিল কাশ্মিরিরা। আর এ কারণেই যে কোনও সহিংসতা রুখতে শুক্রবার আরও কঠোর অবস্থান নিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। শহরের বেশ কিছু অঞ্চলে জারি করা হয়েছে কারফিউ। সবাইকে ঘরে অবস্থান করতেও নির্দেশ দিয়েছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেও শহরের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের পাথর ছোড়াছুড়ির মত বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে।  

ভারতের জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, জুমার নামাজকে কেন্দ্র করে শুক্রবার সকাল থেকে আবারও আগের অবস্থায় ফিরে এসেছে কাশ্মির উপত্যকা। এদিন শ্রীনগরে জাতিসংঘের যে সামরিক পর্যবেক্ষক গোষ্ঠীর (ইউএনএমওজি) স্থানীয় কার্যালয় অভিমুখে মিছিল হওয়ার আশঙ্কায় স্পর্শকাতর এলাকাগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া বড় ধরনের সহিংসতা ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে জাতিসংঘ কার্যালয়ের আশেপাশে এসএসবি, সিআরপিএফ ও জেকেপি সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটিতে ইন্ডিয়া টুডে আরও জানিয়েছে, শ্রীনগর শহরের প্রধান সব সড়কে অবস্থিত মসজিদগুলো শুক্রবার বন্ধ রাখা হয়েছে। বন্ধ করা হয়েছে সেখানকার ল্যান্ডফোন সংযোগও। 

এদিকে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি সপ্তাহেই শ্রীনগরের দেয়াল ছেয়ে গেছে বিভিন্ন রকম প্রতিবাদী পোস্টারে। শহরটিতে অবস্থিত ভারত-পাকিস্তান নিয়ে জাতিসংঘের সামরিক পর্যবেক্ষক গ্রুপের দফতর অভিমুখে মিছিলের ডাক দেওয়া হয়েছে। 

শুক্রবার ওই দফতর অভিমুখে যাওয়া প্রধান সড়কে অবস্থান নিয়েছে আধাসামরিক বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য। বেশ কিছু স্থানে বসানো হয়েছে ব্যারিকেড। বিক্ষোভের কেন্দ্র হিসেবে শহরের পুরাতন কলোনিতেও নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এছাড়া একাধিক জায়গায় তারকাঁটা বসিয়ে পথ বন্ধ করা হয়েছে।

গেল দুই সপ্তাহ ধরে কাশ্মিরের বিভিন্ন স্থানে শত শত মানুষ একাধিকবার বিক্ষোভ করেছে। এসময় পুলিশের নিক্ষেপ করা টিয়ার শেল ও গুলিতে আহত হয়েছে অন্তত ১৫২ জন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরের বেশিরভাগ দোকানই বন্ধ রয়েছে। বছরের অন্যান্য সময় পর্যটকে পরিপূর্ণ থাকলেও এ অঞ্চলে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। 

বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, চলতি সপ্তাহের শেষে জি৭ সম্মেলনের সাইডলাইন বৈঠকে কাশ্মির ইস্যুতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আলাপ করার পরিকল্পনা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের।

নাবা/ডেস্ক/কৌশিক

    মতামত দিন