বন্ধু কি খবর বল...

  • প্রকাশিতঃ রবিবার, ০৪ আগস্ট ২০১৯, ১২:০০
বন্ধু কি খবর বল...

‘হঠাৎ রাস্তায় অফিস অঞ্চলে

হারিয়ে যাওয়া মুখ চমকে দিয়ে বলে

বন্ধু কি খবর বল

কত দিন দেখা হয়নি’

বন্ধুত্ব সম্পর্কটি কবীর সুমনের এই গানের মতোই। বছরের পর বছর দেখা না হওয়ার পর আত্মার বন্ধন থাকে সজীব। হঠাৎ দেখা হলেও সময়কে পেছনে ফেলে জমে ওঠে প্রাণবন্ত আড্ডা। ব্যস্ততার যাতাকলে যখন মনে ক্লান্তি ভর করে করে, তখনও প্রাণবন্ত করে তুলতে পারে বন্ধুত্ব।  

আত্মার কাছাকাছি যে বসবাস করে, সে আত্মার আত্মীয়; বন্ধু বা স্বজন। এই বন্ধু শব্দটি ছোট হলেও গভীরতা অসীম। এক স্বার্থহীন ও নিষ্পাপ বন্ধনের নাম বন্ধুত্ব। বন্ধু আর বন্ধন যেন একটি মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। এক পাকাপোক্ত সম্পর্ক। তবে সময়ের বন্ধু হলেও সবাই মনের বন্ধু হতে পারে না। যে কেউ হতে পারে অন্য যে কারও জীবনের পরম বন্ধু। এর জন্য লাগে না বিশেষ কোন যোগ্যতা। শুধু প্রয়োজন মনের মিল। এ বন্ধন শৈশব, কৈশোর, যৌবন- যেকোন বয়সেই হতে পারে। সেই বন্ধনকে আরো রঙিন করে তুলতে আগস্টের প্রথম রোববার পালিত হয় বিশ্ব বন্ধু দিবস। যদিও বন্ধুত্বে কোন নির্দিষ্ট সময় মানে না। থাকে না কোন বয়সসীমাও। সমবয়সীরা যেমন বন্ধু হতে পারে, তেমনি ছোট-বড়দের মাঝেও হতে পারে বন্ধুত্ব। যেখানে মূলমন্ত্র একটাই, তা মনের মিল।

আজ রোববার ৪ আগস্ট, বিশ্ব বন্ধু দিবস। এই বন্ধু দিবসের শুরুটা হয় যুক্তরাষ্ট্রে। ১৯১৯ সালে সর্বপ্রথম আগস্ট মাসের প্রথম রোববার ‘বন্ধু দিবস’ হিসেবে পালন করা হয় মার্কিন মূলুকে। সেসময় থেকেই নিজেদের মধ্যে কার্ড ও উপহার বিনিময় করতেন সেখানকার মানুষেরা। এভাবেই শুরু হয় বন্ধু দিবস। এই দিবস নিয়ে আরেকটি গল্পেরও প্রচলন আছে। ১৯৩৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কারণে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছিল। আর তাই এই এ ঘটনার প্রতিবাদে পরদিন ওই ব্যক্তির এক বন্ধু আত্মহত্যা করেন। সেই দিনটি ছিল আগস্ট মাসের প্রথম রোববার। তখন থেকেই তার আত্মত্যাগের প্রতি সম্মান জানাতে মার্কিন কংগ্রেস ১৯৩৫ সালের আগস্ট মাসের প্রথম রোববারকে ‘বন্ধু দিবস’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। শুরু দিকে, কয়েকটি দেশ বন্ধু দিবস পালন করলে, ধীরে ধীরে এর বিস্তৃতি বাড়তে থাকে।

বন্ধুত্ব এমন একটি সম্পর্ক, যে সম্পর্কে মানুষ শুধু মনের ক্লান্তি আর সুখ-দুঃখই ভাগাভাগি করে না। আছে অনেক উপকারিতাও। এক গবেষণায় তেমনটি প্রমাণ মেলে। 

গবেষকদের মতে, বন্ধুরা কাছাকাছি থাকলে মানুষের রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকে এবং তা রোগ নিরাময়ে ভূমিকা রাখে। শিশুরা হাঁটা ও কথা বলা শেখার আগেই বন্ধুত্বের অনুভূতি টের পেতে পারে।

‘বন্ধুত্ব’ এমন একটা সম্পর্ক, যা অনেক ক্ষেত্রে জীবনের চেয়েও দামি হয়ে দাঁড়ায়। এমন নজির পৃথিবীতে বহু আছে। যেসব নিয়ে রচিত হয়েছে নানা গল্প, কাহিনী, কবিতা, গান ও উপন্যাস।

পৃথিবীর সব মানুষের বন্ধুত্ব অটুট থাকুক। সবার বন্ধুরা ভালো থাকুক।


    মতামত দিন