এই বাজেট শুধু এক বছরের জন্য নয়, সুদূরপ্রসারী

‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’- শিরোনামের এবারের বাজেট শুধু এক অর্থ বছরের বছরের জন্য নয়, তৈরি করা হয়েছে ২০৪১ সালকে টার্গেট করে। সংসদ সূত্রে এমনটিই জানা গেছে।

টার্গেটগুলোর মধ্যে রয়েছে- প্রবৃদ্ধিতে অসমতা, বিনিয়োগ সঙ্কট, সুশাসনের ঘাটতি, ব্যাংকিং খাতের দুরবস্থা, অর্থনীতির আকারে রাজস্ব আদায় কম, বৈদেশিক লেনদেন ঘাটতি।

জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের সম্ভাব্য আকার পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। এ ব্যয় মেটাতে আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে তিন লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। আর অনুদানসহ আয় হবে তিন লাখ ৮১ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা।

সংসদ সূত্রে আরো জানা গেছে, অন্যান্য বছরের নিয়ম থেকে বেরিয়ে নতুন আঙ্গিকে তৈরি করা হয়েছে এবারের বাজেট। বর্ধিত আকারের বাজেট হলেও অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতা হবে সংক্ষিপ্ত। তবে এ বক্তৃতার একটি বর্ধিত সংস্করণ বাজেট বই আকারে সবার জন্য উন্মুক্ত করা হবে, যা সর্বস্তরের জনসাধারণের জন্য হবে সহজপাঠ্য।

বাজেটের লক্ষ্য সুদূরপ্রসারী হলেও তা অর্জন করতে সাধ্যের মধ্যে চেষ্টা করা হবে। রাজস্ব আদায়ে করের হার বাড়ানো হবে না। বরং করের আওতা বাড়িয়ে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা হবে। একই সঙ্গে রাজস্ব আদায় প্রক্রিয়া সহজ করতে এনবিআরের জন্য নতুন করে দিক-নির্দেশনা রয়েছে বাজেটে।

নতুন বাজেটে শিক্ষা ও আর্থিক খাত সংস্কার, শেয়ারবাজারে সুশাসন ও প্রণোদনা প্রদান বিষয়ে দিকনির্দেশনা রয়েছে।

নাবা/১৩জুন/তারেক