সুদমুক্ত ঋন সুবিধা চায় সরকারি কর্মকর্তারা

নিউজ ডেস্ক:  ইসলাম ধর্মের রীতি মেনে সুদমুক্ত গৃহঋণের সুবিধা চেয়েছেন সরকারি কর্মকর্তারা। সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয়। ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান সাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ধর্মীয় রীতিতে সুদকে নিরুৎসাহিত করায় সরকারের দেয়া ৫ শতাংশ সুদের গৃহ ঋণ নিতে পারছেন না অনেকেই।

২০১৮ সালের ৩০ জুলাই ব্যাংকের মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা গৃহঋণ দেয়ার উদ্যোগ নেয় অর্থ মন্ত্রণালয়। এতে ১০ শতাংশ সুদের অর্ধেকটা দিচ্ছে সরকার। তবে প্রজ্ঞাপন জারির মাত্র ৭ মাসের মধ্যেই এলো নতুন আবেদন। গাড়ি কেনায় সুদমুক্ত ঋণের মতোই গৃহঋণ চান সরকারি কর্মকর্তাদের কেউ কেউ।

অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো চিঠিতে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাফিজুর রহমান জানান, সাধ থাকলেও অনেকেই ধর্মীয় রীতি মেনে চলায় সুদের কারণে সরকার ঘোষিত এই ঋণের সুবিধা নিতে পারছেন না। তাই ধর্মীয়, সামাজিক ও অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি বিবেচনায় গৃহঋণের এই সুদকে অনুদান বা চাঁদা হিসেবে বিবেচনার অনুরোধ করা হয় ওই চিঠিতে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদের এমন সুবিধা বৈষম্য তৈরি করবে সমাজে। বিপত্তি তৈরি হবে ব্যাংকিং কার্যক্রমেও।’

যদিও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলছেন, ‘সরকারি সুবিধা দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো বৈষম্য করবে না সরকার। যাছাইবাছাইয়ের পরই কেবল এই বিষয়ের সিদ্ধান্ত হবে।

এমএমএ/