লোহার খনিতে আশায় বুক বেঁধেছে ওরা

দিনাজপুরের হিলিতে লোহার খনির কেন্দ্রস্থলে চলছে ড্রিলের কাজ। এতে জানা যাবে লোহার মজুত ও বিস্তৃতির পরিমাণ। ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর বলছে, ভূপৃষ্ঠ থেকে এ খনির দূরত্ব খুবই কম।

লোহার খনির আবিষ্কারের খবরে ইতিবাচক সাড়া পড়েছে স্থানীয়দের মাঝে। এই খনি ঘিরে আশায় বুক বেঁধেছেন স্থানীয়রা। দেখা দিয়েছে নতুন কর্মসংস্থান তৈরির সম্ভাবনা। তাদের প্রত্যাশা, এর ফলে তৈরি হবে নতুন কর্মসংস্থান।

বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর ২০১৩ সালে দিনাজপুরের হিলি উপজেলার মুর্শিদপুর গ্রামে খনিজসম্পদ অনুসন্ধানে জরিপ চালায়। অনুসন্ধানকারী দল সে সময় লোহার আকরিকের সন্ধান পায়।

এর ভিত্তিতে গত ১৯ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় পর্যায়ে জরিপের কাজ চালাচ্ছে দলটি। পাওয়া গেছে লোহা ও চৌম্বক জাতীয় পদার্থের উপস্থিতি। চলছে খনির কেন্দ্রস্থলে ড্রিলের কাজ। দিন রাত কাজ করছেন ৩০ সদস্যের দল।

সেপ্টেম্বর-অক্টোবর পর্যন্ত ভূ পৃষ্ঠ থেকে ১ হাজার চারশো ৩৩ ফিট নিচে এই লোহার খনিতে মজুত ও বিস্তৃতি যাচাইয়ের জন্য ড্রিলিংয়ের কাজ চলবে।
নাবা/সেন্ট্রাল ডেস্ক/কেএইচ/