লিটন হত্যা: অস্ত্র মামলায় কাদের খানের যাবজ্জীবন

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যার ঘটনায় করা অস্ত্র মামলায় সাবেক এমপি ও অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল আবদুল কাদের খানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক এ রায় ঘোষণা করেন।

মামলায় পৃথক দুটি ধারায় একটিতে যাবজ্জীবন, অন্যটিতে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

এর আগে সকালে একমাত্র আসামি কর্নেল আঃ কাদের খানকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। গত ৩০ মে যুক্তিতর্ক ও শুনানি শেষ হওয়ায় রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন আদালত।

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর আততায়ীর গুলিতে নিহত হন। উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের উত্তর শাহবাজ মাস্টারপাড়ায় নিজ বাসভবনের সামনে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। লিটন হত্যাকাণ্ড ঘটনায় তার ছোট বোন ফাহমিদা বুলবুল কাকলী পর দিন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৫-৬ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

২০১৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী সাবেক এমপি ও অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল আবদুল কাদের খানকে বগুড়ার নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে কাদের খানের দেয়া তথ্যানুযায়ী তার বাড়ির উঠানের মাটির নিচ থেকে ছয় রাউন্ড গুলি ও একটি পিস্তল উদ্ধার করে পুলিশ। মামলার তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে লিটন হত্যা মামলায় সাবেক এমপি (অব.) কর্নেল ডা. আঃ কাদের খানকে প্রধান অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এমপি লিটন হত্যা মামলার প্রধান আসামী একই আসনের মহাজোট সরকারের সাবেক এমপি কর্ণেল (অব:) ডাক্তার আব্দুল কাদের খানকে অস্ত্র মামলায় দ্য আর্মস এ্যাক্ট ১৮৭৮ এর ১৯(র) ধারায় ১৫ বছরের সশ্রম ও একই এ্যাক্ট এর ১৯-অ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ প্রদান করেছেন গাইবান্ধার স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল- ১ এর বিজ্ঞ বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক।

ওই ঘটনায় পরের বছর ২১ ফেব্রুয়ারি বগুড়া থেকে গ্রেফতার করা হয় আব্দুল কাদের খানকে।
নাবা/সেন্ট্রাল ডেস্ক/কেএইচ/