মাশরাফির মতো কাঁদলেন তাসকিনও

২০১১ বিশ্বকাপের আগে যখন বাংলাদেশ দল ঘোষণা করা হয়েছিল, তারপর মিরপুরে বিসিবি একাডেমি মাঠে গিয়ে দলে জায়গা না পাওয়ার কষ্টে কেঁদে দিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ ইনজুরির কারণে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে সুযোগ পান নি। বিষয়টি সহজে মেনে নিতে না পেরে সাংবাদিকদের সামনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের নিয়মিত একাদশে থাকা তাসকিনও ।

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরের সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন তাসকিন। গত বছরের প্রায় পুরোটাই ইনজুরির সাথে লড়াই করে কাটিয়ে বিপিএল দিয়ে নির্বাচকদের নজরে এসেছিলেন তিনি। দারুণ পারফর্ম করে টুর্নামেন্টের সেরা বোলারদের খেতাব অর্জন করেন এই পেসার।

কিন্তু বিপিএলের শেষ ম্যাচে ইনজুরির শিকার হয়ে নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে ছিটকে পড়েন। গত দুই মাস ইনজুরির সাথে লড়াই করে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ দিয়ে ক্রিকেট ফিরেছেন তিনি। কিন্তু নির্বাচকদের সন্তুষ্ট করতে ব্যর্থ হন তাসকিন।

‘ঠিক আছে, শুধু আমার জন্য দোয়া করবেন।’ একাডেমী প্রাঙ্গণে কান্না জর্জরিত কণ্ঠে সাংবাদিকদের বলেছেন তাসকিন। ‘আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি ফিটনেস ফিরে পাওয়ার। কিন্তু হয়তো সেটা যথেষ্ট ছিল না। ভাগ্য খারাপ ছাড়া কিছু বলার নেই আমার। আমি শুধু এইটুক বলতে পারি, আমি আবার ধারাবাহিক পারফর্মেন্স দিয়ে ফিরে আসব।’

মূল স্কোয়াডে সুযোগ না পেলেও নির্বাচকদের ভাবনায় ভালোভাবেই আছেন তাসকিন।  আয়ারল্যান্ড সিরিজে পেসারদের পারফর্মেন্স বিবেচনা করে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে পরিবর্তন আসতে পারে। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেছেন,

‘আমরা ওকে নিয়ে অনেক দিন থেকেই চিন্তা করছি। সে কিন্তু ২০১৭ সালের ২২শে অক্টোবর সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশের হয়ে। ওটার পরে কিন্তু আমরা যখন ওকে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য চিন্তা ভাবনা করেছিলাম তখন আবার ইনজুরিতে পড়ে গিয়েছে। এখন পর্যন্ত সে পুরোপুরি ফিট না।