মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র

মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ফিলিস্তিনিদের বর্জনের মুখে বাহরাইনে অনুষ্ঠিতব্য দুই দিনের এক কর্মশালায় এই পরিকল্পনা ঘোষণা করা হয়। তবে এতে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র বা ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘাতের কোনও রাজনৈতিক ইস্যুর কথা বলা হয়নি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টা ও জামাই জারেড কুশনার ‘শান্তির জন্য সমৃদ্ধি’ শীর্ষক এই পরিকল্পনা ঘোষণা করেন। এর আওতায় ফিলিস্তিনি অঞ্চল ও প্রতিবেশি আরব রাষ্ট্রগুলোতে পরবর্তী দশ বছরে পাঁচ হাজার কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগের কথা বলা হয়েছে।

  ট্রাম্প প্রশাসন জানিয়েছে পরিকল্পনার রাজনৈতিক অংশ পরে প্রকাশ করা হবে।কয়েক দশকের মার্কিন রীতি থেকে বেরিয়ে ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী স্বীকৃতির ঘোষণা দেন ট্রাম্প।

বিক্ষোভে ফেটে পড়া ফিলিস্তিনিদের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়, এর পরে ইসরায়েলের সঙ্গে আর কোনও শান্তি আলোচনায় মার্কিন মধ্যস্ততা মানবে তারা। এর মধ্যে নানা সময়ে সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছে ফিলিস্তিন ইস্যুতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইসরায়েল ঘেঁষা শান্তি পরিকল্পনার বিভিন্ন দিক।

যুক্তরাষ্ট্রের তরফে জানানো হয় ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি বা শতাব্দীর সেরা চুক্তি নামে পরিচিত এই পরিকল্পনা রমজানের পর আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হবে।গতকাল মঙ্গলবার বাহরাইনের একটি হোটেলে মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা জারেড কুশনারের নেতৃত্বে শুরু হয়েছে হয়েছে দুই দিনের অর্থনৈতিক কর্মশালা।

এই কর্মশালায় মধ্যপ্রাচ্যে বিপুল বিনিয়োগের ঘোষণা দেন কুশনার। রাস্তা উন্নয়ন, সীমান্ত ক্রসিং, শক্তি উৎপাদন ও পর্যটনসহ নানা খাতে বিপুল বিনিয়োগের কথা জানানো হয় ওই পরিকল্পনায়।

বলা হয়, এসব প্রকল্পের অধীনে লাখ লাখ ফিলিস্তিনির কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।তবে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ও তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী  হামাসের পক্ষ থেকে এই মার্কিন পরিকল্পনা প্রত্যাখান করা হয়েছে।

 গত রোববার ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র পুরো বিষয়টিকে রাজনৈতিক ইস্যু থেকে অর্থনৈতিক ইস্যু বানিয়ে ফেলছে, আমরা এটি গ্রহণ করতে পারি না’। বাহরাইনে সম্মেলন শুরুর আগে এর প্রতিবাদে সোমবার পশ্চিম তীরের রাস্তায় বিক্ষোভ করে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি। হেবরনের কাছে পোড়ানো হয় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও বাহরাইনের বাদশার ছবি।সুত্র: এএফপি।

নাবা/ ডেস্ক/ তানিয়া রাত্রি