ভাসানচর নিয়ে আন্তর্জাতিক সংস্থার নেতিবাচক প্রচার!

নোয়াখালীর ভাসানচর বঙ্গোপসাগরে ১৩ হাজার একর আয়তনের একটি দ্বীপ। যার তিন হাজার একর জায়গার চারপাশে বাঁধ নির্মাণ করে রোহিঙ্গাদের জন্য বসতি গড়ে তোলা হয়েছে।

কিন্তু কিছু আন্তর্জাতিক সংস্থা রোহিঙ্গাদের মাঝে ভাসানচর সম্পর্কে নেতিবাচক প্রচারণা চালাচ্ছে।

কক্সবাজারের এই ক্যাম্পগুলোতে পলিথিনে মোড়ানো খুপড়ি ঘরে গাদাগাদি হয়ে এক দুর্বিসহ জীবন কাটাচ্ছেন রোহিঙ্গারা। তারপরও তারা ভাসানচরে যেতে চান না।

তার কারণ জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেনন, তিনি মনে করেন ভাসানচর সম্পর্কে রোহিঙ্গাদের ভুল বোঝানো হয়েছে।

জাতিসংঘ বলছে, ভাসানচরে জীবন ধারণের সার্বিক দিক মূল্যায়ণের পরই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

সেখানে এক লাখ রোহিঙ্গাকে সাময়িক আশ্রয় দিতে ১৪৪০টি ঘর বানানো হয়েছে। এছাড়া বন্যা-জলোচ্ছ্বাসের পানি ঠেকাতে এসব বাড়ি মাটি থেকে চার ফুট উঁচুতে তৈরি করা হয়েছে।

চারজনের একটি পরিবারকে দেওয়া হবে একটি কক্ষ। সাথে থাকছে সুপেয় পানি, সোলার বিদ্যুৎ, বায়োগ্যাস, পুকুর, স্যানিটেশনসহ বেচে থাকার স্বাস্থ্য সম্মত সব ব্যবস্থা।

রোহিঙ্গারা এখানে চিকিৎসা, শিক্ষা ও কাজের সুযোগ পাবেন। থাকবে পর্যাপ্ত নিরাপত্তাও। যেকোনো দুর্যোগ থেকে মানুষকে বাঁচাতে ১২০টি সাইক্লোন শেল্টারও বানানো হয়েছে। যার প্রতিটি চার তলা ভবন।
নাবা/সেন্ট্রাল ডেস্ক/কেএইচ/