বাবুরহাট বাজারের রাস্তা ভাড়া দিয়ে মুনাফা গুনছেন দোকানী

চাঁদপুর শহড়তলীর বাবুরহাট বাজারে রাস্তা ভাড়া দেওয়ার ঘটনা ঘটছে দীর্ঘদিন যাবৎ। আর এই রাস্তা ভাড়া দেওয়ার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন সয়ং দোকান ব্যবসায়ীরা। বাজারের কিছু অসাধু দোকান ব্যবাসায়ীরা অধিক মুনাফর আশায় তাদের দোকানের সামনে রাস্তার উপর দোকান বসিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ভাড়া দিয়ে তার মুনাফা আদায় করে আসছেন।

বাবুরহাট মধ্য বাজারের কাঁচা বাজার গলিতে দেখা যায় এমন চিত্র। রাস্তার দু’পাশে দোকান বসিয়ে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে একটি রিকশা চলাচল করতেও মাঝে মাঝে মারাত্মক বেগ পোহাতে হয়।

রাস্তার উপর দোকান ভাড়া দেওয়া নেওয়ার ঘটনা ঘটে দোকান ব্যবসায়ী এবং ফুটপাত ব্যবসায়ীর মাঝে। ভাড়া দেওয়া নেওয়ার ঘটনাটি খুবই গোপনীয়ভাবে ঘটে বলে বিষয়টি অন্য কেহই জানেন না। কিছুদিন পূর্বে এমন একটি বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা ঘটলে বেড়িয়ে আসে নানান তথ্য।

জানা যায় বাবুরহাট মধ্য বাজারের মুদি মালের ব্যবসায়ী তাপস ধরের দোকানের সামনে দীর্ঘ ১৮ বছর যাবৎ কাঁচা মালের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন আমিন পাটওয়ারী নামের কাঁচা মালের ব্যবসায়ী। এরজন্য গত কয়েক বছর আগে তাপস ধরে তার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা জামানত রাখেন। বর্তমানে তাপস তার দোকানের সামনে রাস্তায় দোকান বসানোর জন্য আমিন পাটওয়ারীকে ৩ লক্ষ টাকা নগদ জামানত এবং মাসিক ভাড়া ৫ হাজার টাকা দাবী করেন। পরবর্তীতে উভয়ের মধ্যে দর কষাকতীতে বাগবিতন্ডা ও ঝগরার সৃষ্টি হয় এবং ফুটপাত দোকানীকে তার মালামালসহ দোকান নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়।

এবিষয়ে আমিন পাটওয়ারী জানান, এইখানে আমার বাবা দীর্ঘদিন যাবৎ কাচামালের ব্যবসা করে আসছিল। আমার বাবার মৃত্যুর পর আমিও কাচা মালের ব্যবসা করে আসছি। কিন্তু কিছুদিন পূর্বে তাপস ধর আমার কাছে ৩ লক্ষ টাকা জামানত ও ৫ হাজার টাকা মাসিক ভাড়া দাবী করে। আমি তাকে এই টাকা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে তার সাথে আমার বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে সে আমাকে তার দোকানের সামনে থেকে আমার কাচা মালের দোকান সহ মালামাল সরিয়ে নেওয়ার কথা বলে।

জানা যায়, আমিন পাটওয়ারী কাচামালের দোকান সরিয়ে তাপস ধর ৩ বছরের মাসিক ভাড়া ৩ হাজার টাকা ধার্য করে পবন পাল নামের এক জনকে আবার রাস্তা ভাড়া দেয়। বিষয়টি নিয়ে বাবুরহাট বাজারের সাধারন মানুষের মধ্যে নানান কৌতুহল সৃষ্টি হয়। তার এমন কর্মকান্ডে তার খুটির জোর নিয়েও সকলের মাঝে প্রশ্ন জাগে।

এবিষয়ে তাপস ধরের সাথে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে আলাপকালে তিনি এমন কোন ঘটনা হয়নি মর্মে জানান। তাহলে কেন আমিন পাটওয়ারীকে সরিয়ে দেওয়া হল এমন প্রশ্নের জবাব না দিয়ে তিনি মোবাইল ফোন কেটে দেন।

বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী ও সাধারন মানুষ জানান বাবুরহাট মধ্য বাজারে অবস্থিত কাচা মালের প্রায় বেশ কয়েকটি দোকানের ভাড়াটিয়াই এমন কর্মকান্ড করছেন। ফলে এরাস্তা দিয়ে আগত ক্রেতা সাধারনের চলাচলে মারাত্মক বেগ পোহাতে হচ্ছে। বিষয়টি জেলা প্রশাসন সহ পৌর কতৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন বাবুরহাট এলাকার সচেতন মহল।

নাবা/ডেস্ক/রাজু