বলাৎকারে ব্যার্থ হয়ে মাদ্রাসা ছাত্রকে হত্যা করে হাফেজ

ছাত্রকে বলাৎকারে ব্যার্থ হয়ে ক্ষোভে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করেছে হাফেজ হাফিজুর রহমান। ঘটনাটি যশোরের শার্শা উপজেলার। নিহত মাদ্রাসা ছাত্রের নাম শাহ্ পরান।

মঙ্গলবার (১১ জুন) রাতে খুলনার দিঘলিয়া থেকে তাকে আটক করা হয়। হাফিজুর রহমান শার্শা উপজেলার কাগজপুকুর হিফজুল কোরআন এতিমখানা মাদ্রাসার শিক্ষক ও মাদ্রাসা সংলগ্ন মসজিদের ইমাম।

এ বিষয়ে যশোর নাভারণ সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান বুধবার (১২ জুন) সকাল ১১ টায় সংবাদ সম্মেলন করেন। এতে তিনি জানান, রমজানের ৩-৪ দিন আগে এক রাতে অভিযুক্ত হাফিজুর তার মাদ্রাসার ছাত্র শাহ্‌ পরানকে বলাৎকারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। সেই ক্ষোভ থেকে ৩১ মে শাহ্ পরানকে কৌশলে গোগা গাজিপাড়া গ্রামে তার বাড়িতে নিয়ে গিয়ে দিনভর টয়লেটের আবর্জনা পরিষ্কার করায়। পরে রাতের যে কোনো এক সময়ে তাকে হত্যা করে ঘরের খাটের নিচে মাটি চাপা দেয়।

ঘটনার ৩ দিন পর গত ২ জুন বিকেলে শাহ্ পরানের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান আরও জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার আরাবিয়া কওমি মাদ্রাসা থেকে হাফিজুর রহমানকে আটক করা হয়।

নাবা/১২জুন/তারেক