বর্তমান সরকার সকল ধর্মের উৎসবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি করেছেন

চাঁদপুর: হিন্দু সম্প্রদায়ের দ্বিতীয় বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব বিদ্যা অর্চনায় দেবী সরস্বতীর পূজা রবিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিগত বছরের ন্যায় এ বছরও চাঁদপুর সরকারি কলেজে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের মধ্য দিয়ে দেবী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সরকারি কলেজের বাস্কেট প্যাভিলিয়নে বড় আকারে প্যান্ডেল তৈরি করে এ বছরও সরস্বতী পূজাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সরস্বতী পূজা উদ্যাপনের লক্ষে একটি কমিটি গঠন করা হয়। এর আহ্বায়ক করা হয় প্রফেসর উমেষ চন্দ্র লোধকে।

বেলা ১২টায় পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে আসেন জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান, পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম, জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুরে কর্মরত এনএসআই ডিডি এ.বি.এম ফারুক, প্রফেসর রঞ্জিত কুমার বনিক, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক লক্ষন চন্দ্র সূত্রধর, সাবেক সভাপতি শরীফ চৌধুরী প্রমুখ।

এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মাজেদুর রহমান খান বলেন, বাংলাদেশ সম্প্রতি বন্ধনের দেশ। বর্তমান সরকার সকল ধর্মের উৎসবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি করেছেন। এজন্য ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার। আজকে চাঁদপুর সকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের সহায়তা নিয়ে বিদ্যা অর্চনায় সরস্বতী পুজা করছে। এটিও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সৃষ্টি হয়েছে। এই বন্ধন যেন যুগ যুগ ধরে অটুট থাকে।

তিনি আরও বলেন, আমরা ছোটবেলায় দেখেছি ঈদের সময় হিন্দু সম্প্রদায়ের বন্ধুরা আমাদের সাথে আনন্দ করত। আমরাও হিন্দু বন্ধুদের পূজা অর্চনায় গিয়ে আনন্দ করতাম। এতে করে উভয়ের মধ্যেই ধর্মীয় অনুসূচনার সৃষ্টি হত।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, উপাধ্যক্ষ অসিত বরণ দাস, চাঁদপুর সরকারি কলেজের পূজা উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক উমেষ চন্দ্র লোধ, সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নরেন্দ্র নারায়ন চক্রবর্তী, প্রভাষক রূপক রায়ের সঞ্চালনায় সভাপতির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এস.এম.দেলোয়ার হোসেন।
এমএমএ/