প্রতিযোগিতায়  এগিয়ে বরিস জনসন

যুক্তরাজ্যের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্ব বাছাইয়ের প্রথম দফা ভোটে সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী বরিস জনসন তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর তুলনায় প্রায় তিনগুণ বেশি ভোট পেয়ে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন। বৃহস্পতিবার বরিসের পক্ষে ১১৪টি ভোট পড়েছে বলে জানিয়েছে টোরি দলের নেতৃত্ব নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা ‘১৯২২ কমিটি’।

প্রয়োজনীয় ১৭ ভোট না পাওয়ায় তিন প্রার্থী নেতৃত্ব দৌড় থেকে বাদ পড়েছেন। নেতৃত্ব বাছাইয়ের নিয়ম অনুযায়ী, ৩১৩ কনজারভেটিভ সাংসদ এরপর ১৮, ১৯ ও ২০ জুন সিরিজ ভোটের মাধ্যমে আরও ৫ প্রার্থীকে ছেঁটে ফেলবেন।

শীর্ষ দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে একজনকে বেছে নিতে ভোট দেবে টোরি দলের নিবন্ধিত সদস্যরা। জুলাইয়ের শেষদিকে বিজয়ী ব্যক্তির নাম ঘোষণা করা হবে। ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতা হওয়ার পাশাপাশি ওই বিজয়ী প্রার্থী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-র স্থলাভিষিক্ত হবেন।

বৃহস্পতিবারের ভোটে দ্বিতীয় জেরমি হান্ট পেয়েছেন ৪৩ ভোট; তৃতীয় হওয়া মাইকেল গোভ পেয়েছেন ৩৭ ভোট। চতুর্থ স্থান অর্জন করেছেন ব্রেক্সিট বিষয়ক সাবেক মন্ত্রী ডমিনিক রাব।

পঞ্চম সাজিদ জাভিদ পেয়েছেন ২৩ ভোট; ষষ্ঠ হওয়া ম্যাট হ্যানককের ২০ ভোট। চমকে দিয়ে সপ্তম স্থান অর্জন করেছেন রোরি স্টুয়ার্ট। নিজের ফলে নিজেও বিস্মিত তিনি। ভোটের আগে মাত্র ৬ সহকর্মীর প্রকাশ্য সমর্থন পেয়েছিলেন তিনি।

গোপন ব্যালটে পেয়েছেন তারও তিনগুণ। এ দফার ভোটে বাদ পড়েছেন আন্দ্রিয়া লিডসম, এস্টার ম্যাকভেই ও মার্ক হার্পার। ফল ঘোষণার পর ষষ্ঠ হওয়া হ্যানকক দ্বিতীয় দফার ভোটে অংশ নেবেন কিনা তা নিয়ে ‘ভাবছেন’বলে জানিয়েছেন।

৮ বছর লন্ডনের মেয়রের দায়িত্বে থাকা জনসন প্রথম দফার ভোটে ‘উল্লসিত’ হলেও এখনও অনেক পথ বাকি বলে সমর্থকদের সতর্ক করেছেন। সূত্র : বিবিসি।

নাবা/ডেস্ক/তানিয়া রাত্রি