নোয়াখালীতে ঘরে ঢুকে শিক্ষিকাকে ধর্ষণ

দরজা খুলে বিশ্রামরত শিক্ষিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার ১১ জুন নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে এ ঘটনা ঘটে

অভিযুক্ত যুবক বর্তমানে পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ। অভিযুক্ত মিশন মুছাপুর ইউপির ৫নং ওয়ার্ডের ফয়েজ উল্যাহর নতুন বাড়ির মো. এরফানের ছেলে।

এ ঘটনায় ওই শিক্ষিকা বাদী হয়ে বুধবার (১২ জুন) রাতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন।জানতে চাইলে ওই শিক্ষিকা জানান, তিনি মুছাপুর ইউপির ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। চার বছর আগে আহমেদ মিশনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক হয়। দীর্ঘ এ সময়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কের প্রস্তাব দেয় মিশন। কিন্তু রাজি না হওয়ায় সে অশোভন আচরণ করে। পরে ওই শিক্ষিকা তার সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দিলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। গত ১১ জুন প্রচণ্ড গরমে দরজা খোলা রেখে ওই শিক্ষিকা বাসায় বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। এমন সময় বাসায় ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে মিশন।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামীকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে। ওই নারীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নাবা/ডেস্ক/ওমর