নির্বাচনে চাঁদপুরের আসনগুলোতে দ্বিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট। নাগরিক বার্তা.কম
চাঁদপুর: চাঁদপুর জেলার ৫টি সংসদীয় আসনে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামীলীগ নেতৃত্ত্বাধীন মহাজোট এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট দুই জোটই জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে প্রচার প্ররণা চালিয়ে যাচ্ছে, সকল প্রার্থী আরামের ঘুম হারাম করে এ শীতের মধ্যে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভোটারদের বাড়ি বাড়ি পৌছে ভোট প্রার্থনা করছেন। তবে চাঁদপুর-৩ আসন ছাড়া বাকীগুলোতে বিএনপি প্রচারণায় কোনঠাসা হয়ে আছে।

চাঁদপুর জেলার ৫টি আসনে এবার চুড়ান্তভাবে ৩৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। প্রতিটি আসনে দ্বিমুখী লড়াই হবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে ভোটার, কর্মী ও সমর্থকদের সাথে আলোচনা করে জানা গেছে। এর মধ্যে–
চাঁদপুর-১ ( কচুয়া): এ আসনে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে বর্তমান এমপি ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, তিনি আওয়ামীলীগ থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। মোশারফ হোসেন বিএনপি প্রার্থী ধানের শীষ, অধ্যাপক ডা: একেএসএম শহীদুল ইসলাম স্বতন্ত্র , এমদাদুল হক রুমন, জাতীয় পার্টি ( লাঙ্গল), নুরুল আলম মজুমদার, ইসলামী ফ্রন্ট( মোমবাতি),জোবায়ের আহমেদ,ইসলামী আন্দলন( হাতপাখা), আজাদ হোসেন, গণফোরাম/জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট(ধানের শীষ) প্রতিদ্বন্ধিতা করেেছন। এ আসনে নৌকা, ধানের শীষ এবং স্বতন্ত্র প্রর্থীর মধ্যে ত্রীমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।
চাঁদপুর-২ ( মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিন উপজেলা): এ আসনে মোট ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে নুরুল আমিন রুহুল, আওয়ামীলীগ (নৌকা), ড. জালাল উদ্দিন, বিএনপি (ধানের শীষ), এমরান হোসেন মিয়া,জাতীয় পার্টি (লাঙ্গল), আফসার উদ্দিন,আসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ( হাতপাখা), মো: মনির হোসেন চৌধুরী, ইসলামী ঐক্যজোট (হাতপাখা), নূরুল আমিন লিটন, মুসলিম লীগ প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এখানে নৌকা, ধানের শীষ ও হাতপাখার সাথে লড়াই হবার সম্ভাবনা রয়েছে।
চাঁদপুর-৩ ( চাঁদপুর সদর ও হাইমচর উপজেলা ): এ আসনে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে বর্তমান এমপি ডা. দীপু মনি, আওয়ামীলীগ ( নৌকা), শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক, বিএনপি ( ধানের শীষ), মো: জয়নাল আবেদীন শেখ. ইসলামী আন্দোলন (হাতপাখা), দেওয়ান কামরুন্নেছা, জাকের পার্টি ( গোলাপ ফুল), শাহজাহান তালুকদার,বাসদ (মই) , মো: আজিজুর রহমান, বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি মো: মিজানুর রহমান, তরিকত ফেডারেশন ( ফুলের মালা)। এই আসনে নৌকা, ধানের শীষ এর সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে তবে ইদানিং হাতপাখার নামও উঠে আসছে।
চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ উপজেলা) :এ আসনে সর্বোচ্চ অর্থাৎ ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে সাংবাদিক মুহম্মদ শফিকুর রহমান, আওয়ামীলীগ (নৌকা), এম এ হান্নান,বিএনপি (ধানের শীষ), মুকবুল হোসেন ,ইসলামী আন্দোলন ( হাতপাখা), গোলাম মাহমুদ ভুঁইয়া মানিক,ইসলামী ফ্রন্ট( মোমবাতি), মাঈনুল ইসলাম, জাতীয় পার্টি ( লাঙ্গল), বাচ্চু মিয়া ভাসানী, জাকের পার্টি ( গোলাপ ফুল), আনিসুজ্জামান ভুঁইয়া, বাসদ ( মই), দেলোয়ার হোসেন পাটওয়ারী, (ন্যাপ), মাহবুবুর রহমান ভুঁইয়া, মুসলীম লীগ। এ আসনে বিএনপির প্রার্থীর বিষয়ে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান থাকার কারণে অবস্থা দৃষ্টে নৌকার প্রার্থী সাংবাদিক শফিকুর রহমান এককভাবেই ভোটের মাঠে লড়বেন বলে ধারনা করা হচ্ছে। অবশ্য ইদানিং হাতপাখার নামও উঠে আসছে।

চাঁদপু-৫ (হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা): এই আসনে মোট ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তাঁদের মধ্যে বর্তমান এমপি মেজর (অব:) রফিকুল ইসলাম,বীর উত্তম,আওয়ামীলীগ (নৌকা), ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক, বিএনপি (ধানের শীষ), সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোজাদ্দেদী, ইসলামিক ফ্রন্ট (চেয়ার) আবু সুফিয়ান আল কাদেরী, ইসলামীক ফ্রন্ট মোমবাতি), মো: শাহাদাত হোসেন, আসলামী আন্দোলন ( হাতপাখা), মো: ওবায়েদ মোল্লা, জাকের পার্টি (গোলাপ ফুল), খোরশেদ আলম খুশু, জাতীয় পার্টি (লাঙ্গল) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এই আসনে নৌকা, ধানের শীষ এবং চেয়ার প্রতীকের প্রার্থীদের সাথে ত্রিমুখী ভোট যুদ্ধ হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ থাকে যে, চাঁদপুর জেলার প্রতিটি আসনে আওয়ামী লীগের অন্য প্রতিদ্বন্ধিতাকারী প্রার্থীরা দলের বৃহত্তর স্বার্থে এবং কেন্দ্রীয় হাই কমান্ডের নির্দেশে এক ও অভিন্ন হয়ে মনোনিত প্রার্থীর জন্য একযোগে কাজ করে যাবার দরুন আওয়ামী লীগ সর্বত্র প্রাধান্য বিস্তার করে চলেছে। তবে ইদানিং বিভিন্ন ভোটারদের মুখ থেকে জানা যায়, যে আসনে বিএনপি সুবিধা করতে পারছে না সে স্থানে তারা হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন।

এমএমএ/