নতুন ইতিহাস রচনা করেছি: মিমি

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুরে মিমির জয় যেন এক অন্য বার্তা দিয়েছে টালিগঞ্জকে। বাঘা বাঘা নেতারা ধরাশায়ী হলেও চমক দেখিয়ে পশ্চিমবঙ্গের যাদবপুর থেকে বিপুল ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন টালিউড সেনসেশন মিমি চক্রবর্তী।

মিমির বিরুদ্ধে লড়েছেন ক্ষমতাসীন দল বিজেপির প্রার্থী অনুপম হাজরা ও বামফ্রন্টের বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য। যাদবপুরে এবার ত্রিমুখী লড়াইয়ের কথা বলা হলেও মূলত কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই হয়নি।

যাদবপুরের জনগণ মমতার প্রার্থীকে বিপুল ব্যবধানে জয়ী করেছেন। আনন্দবাজার পত্রিকার খবর বলছে, ২ লাখ ৮০ হাজারেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে অনুপম হাজরাকে পরাজিত করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রার্থী মিমি।

টলিউড এই অভিনেত্রী বলেন, আজ আমার বলতে দ্বিধা নেই যে যাদবপুরে শুধু বড় শিক্ষক, প্রফেসর বা আইনজীবী নির্বাচনে দাঁড়ালে মানুষ ভোট দেবে যাদবপুরের এই মিথ আমি ভেঙে দিয়েছি। যাদবপুর শুধু ‘রেড ব্লক’ এটা আর বলা যাবে না। যাদবপুর থেকেই এখনও পর্যন্ত যত সংখ্যক ভোট পেয়েছি আমি সেই সংখ্যাটাই প্রমাণ করে মানুষ ‘ইয়ুথকে’ চেয়েছে। পাশে দাঁড়িয়েছে। আমাদের দলের সকলের সম্মিলিত পরিশ্রমের ফল এই জয়।

তিনি বলেন, এমন কোনও অঞ্চল ছিল না যেখানে মিমি যায়নি। এক এক জায়গায় সাত-আট বার করে গিয়েছি। আর দেখুন মানুষের পালস্ বুঝতে পারার অভিজ্ঞতা তো আমার আজ হয়নি। স্টেজ শো করতে করতে দেখেছি মানুষ নাচছে। সেই রিঅ্যাকশনে আমাদের পারফর্ম করতে ভাল লাগে। প্রচারে গিয়েছি, একটা পাঁচ বছরের মেয়ে বলছে, আমি বড় হয়ে ‘মিমি’ হতে চাই। আট বছরের এক মেয়ের বাবা-মা এসে বলছে, আমাদের মেয়ের নাম রেখেছি মিমি। সত্তর বছরের বৃদ্ধা জড়িয়ে ধরে রীতিমতো কাঁপছে আর বলছে, এত কাছ থেকে মিমিকে তিনি এ জন্মে পাবেন ভাবেননি। আর কী চাইব বলুন মানুষের এমন ভালবাসার জোর!

উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গে ৪২ আসনের মধ্যে মিমির দল তৃণমূল কংগ্রেস পেয়েছে ২২ আসন। নরেন্দ্র মোদির বিজেপি পেয়েছে ১৮টি। আর বাকি দুটি পেয়েছে রাহুল গান্ধীর কংগ্রেস।

 

নাবা/ডেস্ক/হাফিজ