দিল্লির মসনদে ফের মোদি

নরেন্দ্র দামোদর দাস মোদির ঐতিহাসিক প্রত্যাবর্তন। ফলে ফের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সরকার গঠন করতে চলেছেন মোদি।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন বিজেপি। ৫৪৩ আসনের মধ্যে বিজেপি-জোট পেয়েছে ৩৫০টি। বিজেপি এককভাবে পেয়েছে ৩০২টি আসন। অপরদিকে প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস-জোট ইউপিএ পেয়েছে ৯২টি আসন।

পশ্চিমবঙ্গেও চমক দেখিয়েছে বিজেপি। গতবার দু’টি আসন পেলেও, এবার পেয়েছে ১৮টি আসন। জয় পাওয়ার পর দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেন নরেন্দ্র মোদি। আর পরাজয় মেনে মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।

নির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে জয়লাভের পর নয়াদিল্লিতে বিজেপির প্রধান কার্যালয়ে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে তিনি বলেন,দেশবাসীকে আমি প্রণাম করি। গণতন্ত্রের প্রতি ভারতবাসীর দায়দায়িত্ব সারা বিশ্বকে স্বীকার করতে হবে। নির্বাচন কমিশন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং নির্বাচনের সঙ্গে জড়িত সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, গণতন্ত্রের এই উৎসবে, যেসব মানুষ প্রাণ দিয়েছেন এবং আহত হয়েছেন, তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। গণতন্ত্রের ইতিহাসে গণতন্ত্রের জন্য মৃত্যু বরণকারীরা আগামী প্রজন্মকে প্রেরণা দেবে।

বিজয়ীদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা দেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য কাজ করবেন। ভারতের সংবিধান ও ঐক্যের প্রতি সমর্পিত লোকজনের এই জয়। তাই এই নির্বাচনে কেউ যদি জয়ী হয়ে থাকে, তবে সে হলো ভারতবাসী।

তিনি আরও বলেন, আমরা সবার সঙ্গে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করবো। বিজেপির বিশেষত্ব এটাই যে আমরা কখনো আদর্শ থেকে বিচ্যুত হইনি। তাই একসময় আমরা দুজন থেকেও দুবার ক্ষমতায় এসেছি। এমন কর্মী যে দলের, সেই দলে থেকে গর্ববোধ করছি।

এর আগে বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ বলেন, বিভিন্ন কারণে এটা ঐতিহাসিক জয়। ৫০ বছর পর দেশে প্রথম এমন সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কোনও দল সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। এই জয়ের কারিগর আমাদের সবার নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

তিনি বলেন, ৫০ বছর ধরে কংগ্রেস পরিবার রাজ চালিয়ে যাচ্ছিল। মোদির বিপুল জনপ্রিয়তা আর কর্মীদের কঠোর পরিশ্রমে এসব জাতিবাদ ও পরিবারবাদ শেষ হয়ে গেছে। অনেক রাজ্যে তো কংগ্রেস খাতাই খুলতে পারেনি।

 

নাবা/ডেস্ক/হাফিজ