তুরাগে অবৈধ দখল উচ্ছেদ অব্যাহত, ২০ হাজার ঘনফুট যায়গা উদ্ধার

তুরাগ নদী দখল করে অবৈধ ভাবে গড়ে তোলা আমিন-মোমিন হাউজিংয়ে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে বিআইডাব্লিউটিএ। বুধবার সকাল থেকে দিন ব্যাপী অভিযানে প্রায় ২০ হাজার ঘনফুট জায়গার স্থাপনা অপসারণ করা হয়েছে। তুরাগ নদীর বসিলা অংশের নদীর প্রায় এক কিলোমিটার দীর্ঘ জায়গা দখল করে রাজউকের এক ঠিকাদার আমিন-মোমিন হাউজিং নামের অবৈধ স্থাপনা নির্মান করে। অব্যাহত অভিযানের অংশে হিসেবে বুধবার সকালে হাউজিংটিতে অভিযান শুরু হয়। বিআইডব্লিউটিএ’র ২ দু’টি লং-বুম এক্সেভেটর ও ভাড়াকৃত ৩ টি এক্সেভেটর দিয়ে সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার ঘনমিটার মাটি, বালি ও রাবিশ অপসারণ করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন। তিনি জানান, অভিযান কালে আমিন-মোমিন হাউজিং থেকে খোন্দকার আওলাদ হোসেন হাউজিংয়ের এক কর্মকর্তাকে আটক করা হয়। আটককৃত ব্যক্তিকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান। বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা থেকে বসিলা ব্রীজে নীচে (পশ্চিম প্রান্ত),চন্দ্রিমা হাউজিং ও ঢাকা উদ্যান এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে।

এরআগে গতকাল বসিলা অংশে অভিযানের মধ্য দিয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র উচ্ছেদ অভিযানের দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়। সেগত কালের সেই অভিযানে ৮১টি ছোট-বড় স্থাপনা উচ্ছেদ ও নদীর সাড়ে দশ একর জায়গা অবমুক্ত করে সংস্থাটি। দ্বিতীয় পর্বের অভিযান ৫ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ২৮ মার্চ পর্যন্ত মোট ১২ কার্যদিবস চলবে। এরপর শুরু হবে তৃতীয় পর্ব।

এর আগে অভিযানের প্রথম পর্বে রাজধনীর কামরাঙ্গীচর এলাকায় অভিযান চালিয়ে মোট ১ হাজার ৭২১টি ছোট বড় স্থাপনা উচ্ছেদ করে বিআইডব্লিউটিএ।