ঢাবিতে ছাত্রলীগের দু’পক্ষে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া : আহত ১৫

ছাত্রলীগের সদ্যঘোষিত কেন্দ্রীয় কমিটি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই গ্রুপে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আজ সোমবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় পদ না পাওয়া একাংশের নেতৃবৃন্দ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করলে এ উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। সংঘর্ষে অন্তত ১৫জন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে দিয়ে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে গিয়ে বিক্ষোভ মিছিলটি শেষ হয়।

পদবঞ্চিত এসব নেতাকর্মীরা সাবেক সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইনের অনুসারী।

ইফতারের পরে তারা সকলে একত্রে জড় হয়ে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেন। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে যান পদবঞ্চিত এসব নেতাকর্মীরা।

সেখানে আগে থেকেই অবস্থান করছিলেন সদ্য পদপ্রাপ্ত নেতাকর্মীরা। মধুর ক্যান্টিনে মুখোমুখি অবস্থান নেন পদবঞ্চিত ও পদপ্রাপ্তরা। পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলন শুরু করতে গেলে পদপ্রাপ্ত নেতাকর্মীরা মুহুর্মূহ স্লোগান দিলে সংবাদ সম্মেলন শুরু করতে বাঁধা পায়। এই সময় পদপ্রাপ্তদের মধ্যে থেকে সংবাদ সম্মেলনকারীদের শিবির বলে গ্লাস ও চেয়ার ছুড়ে মারা শুরু করেন। সংবাদ সম্মেলনের ব্যানার ছিড়ে ফেললে দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়।

ছাত্রলীগের সাবেক উপ-অর্থ সম্পাদক ও ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা শিকদার, ডাকসুর ক্রীড়া সম্পাদক তানভীর ভুঁইয়া শাকিল, ডাকসুর সদস্য ও কুয়েত মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সভাপতি ফরিদা পারভীন, সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লা, ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক ও রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার আহত হন। এসময় চেয়ারের আঘাতে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশার মাথা ফেটে যায়। পরে আহত অবস্থায় তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত গোটা ক্যাম্পাস জুড়ে উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে পুলিশের বেশ কয়েকটি টিম ক্যাম্পাসে টহল দিচ্ছে।

সমাবেশে সাবেক প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু বলেন, ‘শোভন-রাব্বানীরা একটি বিতর্কিত কমিটি ঘোষণা করেছে। গত ১০ বছরে যারা ছাত্রলীগের মিছিল-মিটিং করেছে, ডাকসু নির্বাচনসহ কোটা সংস্কার আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে, তারাই বঞ্চিত হয়েছে। সাবেক কমিটির ২৩ জনের ১৯ জনকে কোনো পদ-পদবী দেওয়া হয়নি।’

দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তারা দাবি তোলেন, এই কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে প্রকৃত ছাত্রলীগ নেতাদের যোগ্য পদ দেওয়া হোক।

ছাত্রলীগ নেতা ডাকসুর সদস্য তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ‘গঠনতন্ত্রের নিয়ম ভঙ্গকারীদের এ কমিটিতে রাখা হয়েছে। আমাদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিলেও হামলা করেছে তারা। এতে আহত হয়েছে।’

রেখেছে, তারাই বঞ্চিত হয়েছে। সাবেক কমিটির ২৩ জনের ১৯ জনকে কোনো পদ-পদবী দেওয়া হয়নি।’

দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তারা দাবি তোলেন, এই কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে প্রকৃত ছাত্রলীগ নেতাদের যোগ্য পদ দেওয়া হোক।

ছাত্রলীগ নেতা ডাকসুর সদস্য তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ‘গঠনতন্ত্রের নিয়ম ভঙ্গকারীদের এ কমিটিতে রাখা হয়েছে। আমাদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিলেও হামলা করেছে তারা। এতে ডাকসু সদস্য তিলোত্তমা শিকদার ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক বিএম লিপি আক্তার আহত হয়েছে।’

নাবা/১৩মে/তারেক