ডাক্তার-নার্সদের আচরণে অতিষ্ঠ রোগী-স্বজনরা

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্যসেবা নিতে আসা রোগীরা প্রতিনিয়ত ডাক্তার ও নার্সদের দুর্ব্যবহারের শিকার হন। শুধু তাই নয়, শারীরিকভাবেও লাঞ্ছিত হতে হয় রোগীদের।

সম্প্রতি হাসপাতালটির এক ডাক্তার, অসুস্থ রোগী ও তার স্বজনদের মারধর করেন। সেই ভিডিও ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ডাক্তার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বেপরোয়া আচরণ তারপরও থামেনি।

রক্তাক্ত জখম নিয়ে পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন দুলু বেগম। গত (সোমবার) বিকেলে টয়লেটে গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি। তার ছেলে এসে দেখেন অসুস্থ অবস্থায় কয়েক ঘণ্টা মেঝেতে পড়ে আছে তার মা।

মায়ের ঘটনা দেখেও কোন নার্স বা ডাক্তার কেন এগিয়ে আসেনি তা জানতে গিয়ে ডাক্তার ও নার্সদের হামলার শিকার হন তিনি।

দুলু বেগম বলেন, ‘হুশ হওয়ার পর দেখি, আমার কাছে কেউ নেই। আমি মাটিতে পড়ে আছে। এদিকে, ডাক্তার এসে আমার ছেলেকে কলার ধরে মারা শুরু করে।’

রোগীদের দাবি হাসপাতালটিতে ডাক্তারদের এমন আচরণ অহরহ হচ্ছে। সামান্য ব্যাপারেও ডাক্তার ও নার্সরা রোগীদের গালমন্দ করেন।

একজন রোগী বলেন, ‘আমাকে বলে এই তুই এখানে এসেছিস কেন? বের হ এখান থেকে, বের হ। দূর হ।’

অভিযুক্ত ডাক্তারকে হাসপাতালে খুঁজে না পেয়ে তার কোয়ার্টারে গিয়ে অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করলেও দরজা খোলেননি তিনি।

এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের প্রধানের কোয়ার্টারে গেলে রোগীদের অভিযোগের সত্যতা মেলে। ডাক্তার কথা বলতে সামনে না এলেও তার স্ত্রী চড়াও হন সংবাদ কর্মীদের ওপর।

অফিস সূত্রে জানা গেছে সিভিল সার্জন রয়েছেন জেলার বাইরে রছেন। তিনি এসে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি করবেন। সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
নাবা/সন্ট্রাল ডেস্ক/কেএইচ/