চাঁদপুর শহরের হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অভিযান

চাঁদপুর: ভোক্তা সংরক্ষন ও ভোক্তা অধিকার বিরোধী কার্য প্রতিরোধের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার ২০০৯ সালের ৬ এপ্রিল ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন আইন প্রণয়ন করে। ওই আইনে ক্রেতা সাধারণের অভিযোগ আমলে নিয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার চাঁদপুর জেলা কার্যালয় বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে চাঁদপুর শহরে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় একটি প্রাইভেট হাসপাতাল সহ ৬টি প্রতিষ্ঠান থেকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে।

চাঁদপুর শহরের স্টেডিয়াম রোডস্থ বিসমিল্লাহ ফার্মেসীতে মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ পাওয়ায় ভোক্তা অধিকারে ৪১ ধারায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। একই ধারায় মেডিসিন হোম নামের আরেকটি ঔষধের দোকানকে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মুন হাসপাতাল প্রাইভেট লিমিটেডে মূল্য তালিকা ক্রেতার সম্মুখে ও দৃশ্যমান স্থানে না রাখার দায়ে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মিশন রোড এলাকার হোটেল রোজভেলীতে অভিযান পরিচালনা করে দেখা যায়, হোটেলটির ভেতরে যে টয়লেট রয়েছে তার দরজার সামনে রুটি ও খাদ্য সামগ্রী তৈরি করার জন্য ময়দা খামির তৈরি করে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি একটি ড্রিপ ফ্রিজের মধ্যে বেশ কয়েকদিন পূর্বের রান্না করা ও রান্না বিহীন মাছ মাংস এমনকি মসলা রাখা হয়েছে। এই অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইনে ৫৩ ধারায় ৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

শহরের কোর্ট স্টেশন সংলগ্ন জাহাঙ্গীর পাটওয়ারীর মালিকানাধীন তামীম স্টোর ও আবুল কালামের মালিকানাধীন কামাল স্টোর হতে এক মাসের বেশি মেয়াদ উত্তীর্ণ অনেক বেকারী খাদ্য সামগ্রী জব্ধ করা হয়। মেয়াদহীন খাদ্য রাখার দায়ে ২টি দোকানকেই ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা আদায় করেন ভোক্তা অধিকার চাঁদপুর জেলা কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত মোঃ আছাদুল ইসলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা ক্যাব সভাপতি জীবন কানাই চক্রবর্তী, চাঁদপুর জেলা দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তাক হায়দার চৌধুরী, জেলা ক্যাব সদস্য বিপ্লব সরকার, অফিস সহকারী মোঃ ইউসুফ ও বিডিআর সদস্যগণ।
এমএমএ/