করলা ক্ষেতে ছোট্ট সোহাগের নিথর দেহ!

সোহাগ হোসেন (৬)। পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের ওসাকা কিন্ডারগার্টেনের নার্সারি ক্লাসের ছাত্র সে। কিন্তু সে আর এই পৃথিবীতে নেই। সবাইকে ছেড়ে চলে গেছে না ফেরার দেশে।

নিখোঁজের ১৩ ঘণ্টা পর তার মরদেহ উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। তখনো তার বুকের ওপর ছিলো ফুটবল!

ঈশ্বরদী থানা পুলিশের ওসি বাহাউদ্দীন ফারুকী জানান, এটা পরিকল্পিত হত্যা মনে হচ্ছে। মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা মর্গে পাঠানো হবে।

গত সোমবার স্থানীয় ৩/৪ জন শিশুর সঙ্গে গ্রামের মাঠে ফুটবল খেলতে যায় সোহাগ। পরে আর বাড়ি ফেরেনি। আজ মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের চরগড়গড়ি এলাকায় করলা ক্ষেতের মাঁচার নিচে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় তাকে।

নিহত সোহাগ ওই গ্রামের দিনমজুর কৃষক আকমল হোসেন খাঁর (২৮) একমাত্র সন্তান।

সাহাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মতলেবুর রহমান মিনহাজ ফকির জানান, বাড়ির কাছে মাঠে সহপাঠীদের সঙ্গে ফুটবল খেলতে গিয়ে আর ফেরেনি ফুটফুটে সোহাগ।

তিনি তিনি বলেন, খোঁজ খবর ও গ্রামের মসজিদে মাইকিং করেও সোহাগের সন্ধান মেলেনি। আজ মরদেহ পেয়ে ঈশ্বরদী থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে।
নাবা/ডেস্ক/কেএইচ/