অসুস্থ স্বামীকে খুঁজতে গিয়েই নিহত হন হোসনে আরা

নিউজিল্যান্ডের নুর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত তিন বাংলাদেশির মধ্যে একজন সিলেটের হোসনে আরা পারভীন (৪২)। গুলির শব্দ শুনে মসজিদের নারীদের অংশ থেকে পুরুষদের অংশে অসুস্থ স্বামীকে মসজিদে খুঁজতে গিয়েই গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন তিনি। কিন্তু হোসনে আরা সেখানে পৌঁছার আগেই তার স্বামীকে মসজিদ থেকে বের হতে সাহায্য করেন কয়েকজন মুসুল্লি।

সন্ত্রাসী হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া পারভীনের স্বামী ফরিদ উদ্দিন আহমদ বর্তমানে ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে তাদের তার বাসায় রয়েছেন। ফরিদ উদ্দিনের বাড়ি বিশ্বনাথ উপজেলার চকগ্রামে। আর তার স্ত্রী হোসনে আরা পারভীনের বাবার বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জের জাঙ্গালহাটা গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মৃত নুরুদ্দিনের মেয়ে। তারা তিন বোন ও দুই ভাই।

নিউজিল্যান্ডে বসবাসকারী স্বজনদের বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নিহত হোসনে আরার ভাগ্নে মাহফুজ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় ওই মসজিদের একাংশে নারীরা ও অন্য অংশে পুরুষরা নামাজ আদায় করেন। ঘটনার প্রায় আধঘণ্টা আগে আমার খালা হোসনে আরা তার অসুস্থ স্বামীকে (প্যারালাইসড) নিয়ে মসজিদে যান। সেখানে খালা তার স্বামীকে হুইল চেয়ার করে মসজিদে পুরুষদের অংশে ভেতরে রেখে নিজে নারীদের অংশে নামাজ আদায় করতে যান।’

মাহফুজ চৌধুরী বলেন, ‘প্রায় ১৫ মিনিট পর গুলির শব্দ শুনে হোসনে আরা তার স্বামীকে বাঁচানোর জন্য বের হন। এ সময় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী তাকে গুলি করলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।’
তিনি জানান, নিউজিল্যান্ডের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিহত পারভীনের মরদেহ এখনও তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেনি। পুলিশের পক্ষ থেকে পারভীনের নিহত হওয়ার বিষয়টি নিউজিল্যান্ডে অবস্থানকারী তার স্বজনদের জানানো হয়েছে।

মাহফুজ চৌধুরী বলেন, ‘মসজিদের বাইরে গুলির শব্দ শোনার সঙ্গে সঙ্গে কয়েকজন মুসল্লি হুইল চেয়ারে করে ফরিদ উদ্দিনকে বের করে নেওয়ায় তিনি বেঁচে গেছেন। ফরিদ উদ্দিন ও হোসনে আরা পারভীন ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় বসবাস করতেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, নিহত পারভীন ও ফরিদের এক কন্যা সন্তান রয়েছে। ১৯৯৪ সালে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের কয়েক বছর পর তারা নিউ জিল্যান্ডে চলে যান।

নাবা/ডেস্ক/এনএম