অভিযুক্তরা পদ হারাবেন

ছাত্রলীগের সদ্যঘোষিত কমিটিতে পদপ্রাপ্ত যেসব নেতাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে তাদের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে ওই পদগুলো শূন্য ঘোষণা করে বিতর্কিতদের অব্যাহতি দেওয়া হবে এবং যারা কমিটিকে নিয়ে নানা বদনাম ছড়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থান নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগের এই কমিটিই বহাল থাকবে। শুধু অভিযুক্তদের অভিযোগ প্রমাণ সাপেক্ষে পদগুলো শূন্য হবে। সে লক্ষ্যে বিভিন্ন মাধ্যমে অভিযোগের বিষয়ে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে।

বুধবার রাতে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

সভাপ‌তি শোভনের সঙ্গে এক‌টি মেয়ের অন্তরঙ্গ ছ‌বি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া প্রসঙ্গে জান‌তে চাই‌লে তি‌নি ব‌লেন, ছাত্রলীগের কোথাও নেই যে বান্ধবী থাকতে পারবে না। পদে না থাকলে জানতে পারবেন সে কে।

সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, কমিটি নিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। গঠনতন্ত্রের নিয়মের বাইরে যদি কারও বিরুদ্ধে সংগঠন বহির্ভূত কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগ থাকে, কোনো বিবাহিত, অছাত্রসহ যেসব অভিযোগ উঠেছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী, গঠনতন্ত্র বহির্ভূত আচরণের দায়ে কেউ যদি অভিযুক্ত হয়ে থাকে, অভিযোগ প্রমাণিত হলে আমরা তাদেরকে পদ থেকে অব্যাহতি দেবো।

অভিযুক্তদের কেউ যদি অভিযোগ ভুল বা মিথ্যা প্রমাণ করতে পারে, যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে -যোগ করেন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক।

এখন পর্যন্ত সহ-সভাপতি তানভীর ভূইয়া তানভীর, সুরঞ্জন ঘোষ, বরকত হোসেন হাওলাদার, আরেফিন সিদ্দিকী সুজন, আতিকুর রহমান খান, শাহরিয়ার কবির বিদ্যুৎ, মাহমুদুল হাসান তুষার, আমিনুল ইসলাম বুলবুল, আহসান হাবীব, সাদিক খান, তফিউল হাসান সাগর, মুনমুন নাহার বৈশাখী, আফরিন লাবণী, ইফতির বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সনজিৎ চন্দ্র দাস, সাদ্দাম হোসেন, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মেহেদী হাসান, সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের আহমেদ, উত্তরের সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান লিটন প্রমুখ।

নাবা/১৬মে/তারেক