রাজবাড়ীতে ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

রাজবাড়ীতে ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যাফাইল ছবি

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মৌরাট ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শওকত আলী মন্ডলকে (৪৫) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি। 

বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মৌরাট ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান প্রামাণিক। এ ঘটনায় সন্দেহ বশতঃ পুলিশ আজ বুধবার দুপুরে এলাকার দাড়িয়া মালঞ্চী গ্রামের শুকুর আলী সেখের ছেলে করিম সেখ (৩২)কে আটক করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় আতংক ও থমথমে ভাব বিরাজ করছে। গত রাত থেকেই বাগদুলি বাজারে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

নিহত ইউপি সদস্য পশ্চিম বাগদুল গ্রামের নাজির মন্ডলের ছেলে এবং মৌরাট ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য এবং ওই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন।

জানা গেছে, মঙ্গলবার এশার নামাজের পর বাগদুল বাজারে পলাশ ফার্মেসীতে বসে চা পান করছিলেন শওকত মেম্বার।হঠাৎ সেখান থেকে তাকে জোড়পূর্বক তুলে নিয় ১৫-২০ জনের মুখোস পরা সন্ত্রাসী দল রাস্তার উপর এনে লাঠি ও হাতুরী দিয়ে পিটিয়ে আহত করে পায়ে গুলি করে মুমুর্ষ অবস্থায় রাস্তায় ফেলে রেখে উল্লাস করে সস্ত্রাসীরা। পরে বোমা ফাটিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে সস্ত্রাসীরা।

স্থানীয়রা পরে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পাংশা হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। এরপর রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

মৌরাট ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান প্রামাণিক বলেন, ‘ইউপি মেম্বার শওকত খুবই পরোপকারী একজন মানুষ ছিলেন। সব সময় গরিব অসহায় মানুষকে উপকার করতেন তিনি। কে বা কারা তাকে কী কারণে হত্যা করল তা বুঝতে পারছি না। এই ইউনিয়নের জনগণ একজন ভালো মানুষকে হারাল।’ এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি  ঘটনার সাথে জরিতদের চিহিৃত করে বিচারের দাবী জানান।

পাংশা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)  আহসান উল্লাহ এর সত্যতা শিকার করে জানান, কে বা কারা কেন এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে তা এখনো জানা যায়নি। তবে হত্যাকারীদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। 

আহসান উল্লাহ আরো জানান, নিহতের পরিবারকে সব ধরনের আইনি সহযোগিতা দেয়া হবে। এরই মধ্যে এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য মাঠে কাজ করছে পুলিশ।


নাবা/ডেস্ক/কেএইচ/

রিলেটেড নিউজঃ

    মতামত দিন