ক্ষমা চাইলেন ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন

ক্ষমা চাইলেন ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের দুই সহ-সভাপতির মারামারির দৃশ্য ধারণ করায় এক সাংবাদিককে জোর করে তুলে নেয়ার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন।

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে এসে সভাপতি আবির রায়হান ও সাধারণ সম্পাদক মাহদী আল মুহতাসিম নিবিড়ের কাছে এসে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং ভবিষ্যতে আর এর পুনরাবৃত্তি হবে না বলে জানান।

এসময় শোভন বলেন, আমরা সবসময় চাই সাংবাদিকদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে। কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে কিছু ঘটনা ঘটে যায়। যেটার দায় আমরা এড়াতে পারিনা। ওই সাংবাদিক ভিডিও করার সময় কিছু উশৃঙ্খল কর্মী ছিল যারা একটা দুর্ঘটনা ঘটাতে পারত। তাকে রক্ষা করার জন্যই আমি তাৎক্ষণিক তাকে গাড়িতে উঠিয়ে নিয়েছি। পরে শুনলাম সে সাংবাদিক। ভিডিও ডিলিটের ব্যাপারে আমি জানতাম না। পরে অবশ্য আমি তাকে নিরাপদভাবে পৌঁছে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, এবারের মতো আমি আপনাদের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটলে আমি এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

ঢাবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আবির রায়হান বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতির দুঃখ প্রকাশ করার পর আর কিছু বলার থাকে না। তবে এরকম আর কোনো ঘটনা ঘটলে আমরা শক্ত পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবো।

উল্লেখ্য, মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগ সভাপতির দুই অনুসারী ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী জহির এবং শাহরিয়ার কবির বিদ্যুৎ এর মধ্যকার মারামারির দৃশ্য দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নুর হোসেন ইমন নিজ মোবাইলে ধারণ করলে তাতে নজর পড়ে আরেক সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের। 

এ সময় তিনি ইমনের (সাংবাদিক) হাতে থাকা মোবাইলটি কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে। ইমন মোবাইল না দিতে চাইলে জয় ও ছাত্রলীগের অন্যান্য কর্মীরা তাকে সভাপতি শোভনের কাছে নিয়ে যান। এ সময় শোভন ইমনকে নিজের গাড়িতে তোলেন। পরে তার কাছে থাকা ভিডিওটি ডিলিট করে ছেড়ে দেন।


নাবা/ডেস্ক/ওমর

    মতামত দিন