ডিপ্রেশনের লক্ষণ ও বাঁচার উপায়

  • ওমর ফারুক
  • প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:২৭
ডিপ্রেশনের লক্ষণ ও বাঁচার উপায়

ডিপ্রেশন এমন একটি মানসিক ব্যাধি যা মানুষকে ধীরে ধীরে মানুষকে মৃত্যুর কবলে নিয়ে যায়। গবেষকরা বলছেন, ডিপ্রেশন থেকে ডায়াবেটিস ও হাইপ্রেশার হয়ে থাকে। আবার উল্টোটাও হয়। ডিপ্রেশন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। অনেক সময় বৃদ্ধ, শিশু, কিশোর এমনকি সন্তান সম্ভবা মা বা প্রসূতি মায়েদের ও ডিপ্রেশন হয়, এবং তারা আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।

ডিপ্রেশনের লক্ষণ ও এর থেকে বাঁচার উপায় নিম্নে উপস্থাপন করা হলো।

ডিপ্রেশনের প্রধান কিছু লক্ষণ-

১. সারাক্ষণ মনমরা হয়ে থাকা।

২. উৎসাহ উদ্যম হারিয়ে ফেলা।

৩. ঘুম কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া।

৪. রুচি কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া।

৫. ওজন কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া।

৬. কাজকর্মে শক্তি না পাওয়া।

৭. মনোযোগ হারিয়ে ফেলা।

৮. মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া।

৯. নিজেকে নিঃস্ব অপাঙক্তেয় মনে করা।

১০ অযাচিত অপরাধবোধ।

১১. আত্মহত্যার কথা বলা, ভাবা, চেষ্টা করা।

এ লক্ষণগুলো টানা দু'সপ্তাহের বেশি থাকলে আমরা তাকে মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসওয়ার্ডার এর রোগী বলি, এবং তাকে আত্মহত্যার ঝুঁকিতে আছেন বলা যায়।

চিকিৎসা :

সাইকিয়াট্রিস্টের তত্ত্বাবধানে থেকে নানান প্রকারের কার্যকরী এন্টিডিপ্রেসেন্ট ড্রাগ, সাইকোথেরাপি ও কাউন্সেলিংয়ের মাধ্যমে একজন ডিপ্রেশনের রোগীকে সম্পূর্ণরূপে সুস্থ করে তোলা সম্ভব। সাধারণত এমিট্রিপটাইলিন, সিটালোপ্রাম, এস-সিটালোপ্রাম, মিরটাজাপিন এন্টিডিপ্রেসেন্ট হিসেবে খুবই কার্যকরী।

ডিপ্রেশন নিয়ে লজ্জা নয়। ডিপ্রেসিভ রোগীর প্রতি সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দিন, তাদের সঙ্গে ডিপ্রেশন নিয়ে আলাপ করুন, এবং তাদের চিকিৎসার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নিন।

লেখক: ডা. মো. সাঈদ এনাম ওয়ালিদ, সাইকিয়াট্রিস্ট

এমবিবিএস (ডিএমসি,কে ৫২)

মেম্বার, আমেরিকান সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন মেম্বার, আমেরিকান একাডেমি অব নিউরোলজি।

রিলেটেড নিউজঃ

    মতামত দিন