‘মাংস আমদানি দেশের জন্য আত্মঘাতী’

‘মাংস আমদানি দেশের জন্য আত্মঘাতী’

মাংস আমদানির সুযোগ দেয়া হলে সেটি দেশের জন্য আত্মঘাতী হবে। এর ফলে দেশের খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তবে গোখাদ্য শুল্কমুক্ত আমদানিসহ বিভিন্ন সুযোগ পাওয়া গেলে গরুর মাংস প্রতি কেজি সাড়ে তিনশ টাকায় উৎপাদন করা যাবে বলে জানিয়ে বাংলাদেশ ডেইরি ফারমার্স (বিডিএফএ)।

গতকাল শনিবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরে নবোদয় কনভেনশন সেন্টারে খামারি সম্মেলনে এ কথা জানান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ইমরান হোসেন। সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন এলাকার প্রায় এক হাজার খামারি অংশ নেন।

খামারি সম্মেলনে জানানো হয়, আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে বাংলাদেশে মাংসের দর কিছুটা বেশি। তবে সিন্ডিকেট করে গবাদি পশুর খাবারের দাম যেন না বাড়াতে পারে সেদিকে নজরদারি বাড়াতে হবে। এ ছাড়া খামারিদের টিসিবির আওতায় প্রয়োজনে ভর্তুকি দিয়ে গোখাদ্য বিতরণ, গোখাদ্য আমদানি শুল্কমুক্ত করা, বন্দর থেকে গোখাদ্য দ্রম্নত খালাসের ব্যবস্থা করতে হবে।

আজকের সম্মেলনে দেশের সব উপজেলায় পতিত সরকারি জমি খামারিদের ফডার উৎপাদনে লিজ দেয়া, গবাদি পশু খাদ্য ঘাস, সাইলেজ উৎপাদনে প্রণোদনা, আর্থিক সহায়তা ও ঋণ প্রদান, খামারের বিদু্যৎ, পানির বিল বাণিজ্যিক আওতামুক্ত করে কৃষির আওতায় আনাসহ ১০ দফা দাবি জানানো হয়। এসব দাবি মানা হলে প্রতি কেজি গরুর মাংস সাড়ে তিনশ টাকায় উৎপাদন করা যাবে বলে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়।


নাবা/ডেস্ক/ওমর


    মতামত দিন