কাশ্মীর সীমান্তে যুদ্ধের আশঙ্কা

কাশ্মীর সীমান্তে যুদ্ধের আশঙ্কা

পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান অভিযোগ করে বলেছেন ভূস্বর্গ খ্যাত কাশ্মীর থেকে গোটা বিশ্বের নজর সরাতে অঞ্চলটিতে যুদ্ধের মতো কঠিন পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে ভারত। যার অংশ হিসেবে এবার সেই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে পাকিস্তান। 

পাক সামরিক বাহিনী নিজেদের দখলকৃত অঞ্চলে অতিরিক্ত মাত্রায় সেনা সদস্যদের মোতায়েনের পাশাপাশি সীমান্তে ভারী সমরাস্ত্রবাহী বিমান ও হেলিকপ্টারসহ বিধ্বংসী ট্যাংক পাঠিয়েছে।

পাকিস্তানের খ্যাতনামা সংবাদ কর্মী হামিদ মির এরই মধ্যে নিশ্চিত করেছেন পরমাণু শক্তিধর প্রতিবেশী এই দুই দেশের সীমান্ত এলাকায় এক রকম যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। 

এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘পাক অধিকৃত কাশ্মীরে নিজের সূত্র মারফত আমি এই খবর জানতে পেরেছি। সেখানে এক বড় ধরনের যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে পাকিস্তান।’

যদিও এই দুই পড়শির মধ্যে এখনই পুরোপুরি যুদ্ধ অনুষ্ঠিত না হলেও ছোটখাটো সংঘাতের সম্ভাবনা একেবারেই উড়িয়ে দিচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা। ভারতীয় কূটনীতিকদের একাংশের দাবি, ভারতের সঙ্গে খুব শিগগিরই যুদ্ধ বাঁধতে চলেছে এমন একটা চিত্র তুলে ধরে পাকিস্তান আদতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে তার হস্তক্ষেপ চাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। যদিও ভারত তা কখনোই সফল হতে দিবে না বলেই মত তাদের।

এর আগে গত ৫ আগস্ট (সোমবার) ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা রধের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করেছিল ক্ষমতাসীন মোদী সরকার। যার প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে বিতর্কিত লাদাখ ও জম্মু ও কাশ্মীর সৃষ্টির প্রস্তাবেও সমর্থন জানানো হয়।

এসবের মধ্যেই চলমান কাশ্মীর ইস্যুতে পাক-ভারত মধ্যকার সম্পর্কে নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এরই মধ্যে একে একে ভারত সরকারের সঙ্গে বাণিজ্য, যোগাযোগসহ সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিবেশী পাকিস্তান। যদিও এমন সংকটময় পরিস্থিতিতে পাক সরকারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে এশিয়ার পরাশক্তি চীন; আর ভারত পাশে পেয়েছে রাশিয়াকে।

নাবা/ডেস্ক/কেএইচ/

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

রিলেটেড নিউজঃ

0 মন্তব্য

মতামত দিন